‘ভালো কাজে প্রশংসা, না হলে গঠনমূলক সমালোচনা চাই’

শামছুল হক রাসেল | ১৬ জুন ২০১৬ | পড়া হয়েছে 1392 বার

ছিলেন সংবাদ উপস্থাপিকা, হয়ে গেলেন নায়িকা। এবার দেখা যাবে বড় পর্দায়। যার কথা বলছি তিনি আর কেউ নন- শবনম বুবলি। সম্প্রতি শামীম আহমেদ রনির ‘বসগিরি’ ছবিতে শাকিব খানের নায়িকা হিসেবে আলোচনায় আসেন তিনি। এসব নিয়েই বুবলির  সাক্ষাৎকার নিয়েছেন -শামছুল হক রাসেল

কেমন আছেন?
হুম… বেশ ভালো আছি। ব্যস্ত আছি ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট নিয়ে। নিজেকে গুছিয়ে নিচ্ছি ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ইনিংসের জন্য।

সংবাদ পড়তেন আর এখন নিজেই সংবাদের খোড়াক, কেমন লাগছে?
বিষয়টা আসলেই আনন্দের। কিছুটা এক্সাইটেড। সেই সঙ্গে চ্যালেঞ্জ তো রয়েছেই। বাকিটা সময়ই বলবে। তবে এতটুকু বলতে পারি নিজের সেরাটা ঢেলে দেওয়ার চেষ্টা করব অভিনয়ে।

 

নায়িকা হওয়ার গল্পটা একটু জানতে চাই…
অভিনয়ে আসবো, আমি কখনোই ভাবিনি। যদিও মডেলিং, টিভি নাটক, টেলিফিল্ম ও সিনেমার অনেক প্রস্তাব পেয়েছি। কিন্তু অভিনয়ের কোন পরিকল্পনা আমার কখনোই ছিলো না। বেশ কিছুদিন আগে শাকিব খানের এক সহকারীর ফোন আসে। টেলিভিশনে আমার খবর পড়া দেখে তিনি ফোন দেন। জানান, আমাকে নিয়ে একটি চলচ্চিত্র তৈরির পরিকল্পনা করেছেন। একথা শুনে কিছুটা চমকে উঠি। কারণ আমি তো রুপালি জগত্ সম্পর্কে কোনো জ্ঞান রাখি না। কখনো অভিনয় করিনি। তাই না করে দেই। এরপর শাকিব খান নিজেই আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। জানান, নিজের হোম প্রোডাকশন থেকে একটি ছবি বানাবেন। যেখানে নায়িকা হিসেবে আমাকে আবারও প্রস্তাব দেন।

bubliশাকিব খান জানান, গল্পের প্রয়োজনে যে ধরনের লুক ও গেট-আপ প্রয়োজন তাতে আমি পারফেক্ট। কিন্তু অভিনয়ের জন্য পরিবারের কেউ রাজি ছিলেন না। তারাও চাচ্ছিলেন না আমি ছবিতে কাজ করি। এদিকে, শাকিব খানের সহকারী ছিলেন নাছোড়বান্দা। চাচ্ছিলেন তাদের পরবর্তী ছবিতে কাজ করি। এরই মাঝে পরিচালক শামীম আহমেদ রনি আমাকে ‘বসগিরি’ ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব দেন। তিনি এটাও বলেন, শাকিব খান হোম প্রোডাকশনের জন্য যে ছবিতে আমাকে প্রস্তাব দিয়েছেন সেটিরও পরিচালক তিনি। কিন্তু আমি ও আমার পরিবার আগের সিদ্ধান্তেই অটল থাকি। শেষ পর্যন্ত শামীম ভাই আমার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে আশ্বস্ত করেন যে, এটি ভিন্ন রকমের একটি ছবি এবং কাহিনী ও চিত্রনাট্য পড়ে শোনান আমাদের। অবশেষে জয় তারই হলো। হয়ে গেলাম ‘বসগিরি’র নায়িকা।

 

তা হলে সংবাদ উপস্থাপনা…
কি আর করব ভাই, যেদিন ছবিতে অভিনয়ের সিদ্ধান্ত নিলাম সেদিনই ইউটার্ন নিলাম এ জগৎ থেকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এমবিএ’র পাশাপাশি ছবির জন্য তৈরি করছি নিজেকে। নিয়মিত ব্যায়াম করছি, চেষ্টা করছি ফিটনেস বাড়াতে। আপাতত এগুলো নিয়েই ব্যস্ত।

 

বাণিজ্যিক ছবিতে নিজেকে মানাবেন কিভাবে?
দেখুন, সিদ্ধান্ত যখন নিয়েছি তখন আর পেছনে তাকিয়ে লাভ নেই। ছোটবেলায় টুকটাক নাচের প্রোগ্রামে অংশ নিয়েছি। সেই ভিত্তিকে কাজে লাগিয়ে চেষ্টা করছি নাচটাকে ঘষামাজা করতে। এছাড়া দেশ-বিদেশের প্রচুর ছবি দেখছি, অনুধাবন করছি সবার অভিনয়।

 

সিনেমা জগতে কেউ টি-টোয়েন্টি খেলেন, কেউ আবার টেস্টের মতো ক্যারিয়ার টানেন। আপনার প্রত্যাশা কি?
দেখুন, সবে তো নাম লেখালাম। আগে যাত্রা শুরু হোক। আশ্বস্ত করতে পারি, এ ক্যারিয়ারও স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এছাড়া আপনাদের সহযোগিতাও প্রয়োজন। ভালো কাজ করলে প্রশংসা, না হলে গঠনমূলক সমালোচনা চাই। ভুলত্রুটি হলে তা শুধরে ক্যারিয়ার দৌড়ে এগিয়ে যেতে চাই।

মন্তব্য করতে পারেন এখানে...

আরও লেখা

সব লেখা